ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং কি ( What is Data Driven Marketing) ? কেনই বা এই মার্কেটিং পদ্ধতি এত বেশি জনপ্রিয় ও সফল? ধরুন আপনি একটি অনলাইন শপ দিয়েছেন যেই শপের পণ্য ডেলিভারি হবে শুধু ঢাকার মধ্যে!

এখন খুলনাতে বিজ্ঞাপন দিয়ে তো আপনার কোন লাভ নেই। আবার মনে করি আপনার সেই অনলাইন শপের মাধ্যমে নতুন একটি বিশেষ ধরণের বিস্কুট আপনি বিক্রয় করতে চাচ্ছেন। এই বিস্কুটটি বিশেষ ভাবে ডায়াবেটিক রোগীদের জন্যই তৈরি করা হয়েছে।

এখন আপনি ঢাকায় বিজ্ঞাপন দিচ্ছেন ঠিকই, কিন্তু সেভাবে আপনার পণ্যটি কেউ কিনছে না। দেখা গেল কোন একটি মাধ্যমে আপনার বিজ্ঞাপন এক হাজার জনের কাছে পৌঁছে গেছে, তাদের মধ্যে কেবল মাত্র পঞ্চাশ জন ডায়াবেটিক রোগী। এই এক হাজার জনের কাছে বিজ্ঞাপন পৌঁছানর পর আপনার পণ্য বিক্রয় হল মাত্র দশটি।

কিন্তু আপনি যদি কোন ভাবে এক হাজার জন ডায়াবেটিক রোগীর কাছে আপনার পণ্যের বিজ্ঞাপন পৌঁছে দিতে পারেন, তাহলে তো অবশ্যই আপনার বিক্রয়ও অনেক বেশি হবে।

Social Media Marketing – Content Marketing Masterclass 2020

ঢাকায় ডায়াবেটিক রোগী কারা এই তথ্যের ভিত্তিতেই কিন্তু আপনাকে এই বিজ্ঞাপন দেয়া লাগবে। আর এই ধরণের তথ্য এবং উপাত্তের ভিত্তিতে বিজ্ঞাপন বা মার্কেটিং করাকেই বলা হয় ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং (Data Driven Marketing) ।  

AliExpress.com Product – HAIQIN Mechanical watches mens automatic wrist watch for mens watches top brand luxury watch men Tourbillon relojes hombre 2020

সুতরাং বুঝতেই পারছেন এই ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এর মাধ্যমে ভোক্তাদের যাবতীয় তথ্য এবং উপাত্ত বিশ্লেষণ করে আরো অনেক বেশি কার্যকরী ভাবে বিজ্ঞাপন পৌঁছে দেয়া হয়ে থাকে। এভাবে ডাটা ড্রিভেন মার্কেটিং যে সাধারণ বিজ্ঞাপনের তুলনায় অনেক বেশি কার্যকর হবে সেটা তো বুঝাই যাচ্ছে। তবুও আসুন এই ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এর কিছু উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেই…

ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং (Data Driven Marketing) এর উপকারিতা

ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এর হাজারো উপকারিতা রয়েছে। তারমধ্যে অন্যতম হল এটি অনেক বেশি কার্যকর…

ডেটা ড্রিভেন পদ্ধতি অনুসরণ করে মিডিয়া ক্রয় অর্থাৎ ট্রাফিক ক্রয় অনেক বেশি কার্যকর। কেননা কোন মানুষটি ঠিক কি পছন্দ করতে পারে, সেটা নিয়ে আমাদের খুব বেশি ভাবতে হয় না। বরং তথ্য ও উপাত্তগুলো ব্যবহার করার মাধ্যমেই আমরা সেটা খুব ভালো ভাবেই বুঝতে পারি।

Facebook Marketing 2020: 1000% Facebook Engagement & Sales

এছাড়া এই পদ্ধতি অনুসরণ করার মাধ্যমে আপনি একদম সঠিক কাস্টোমারের কাছে পৌঁছাতে পারবেন। ধরুন যার রাত জেগে বই পড়ার অভ্যাস নেই, তার কাছে যদি আপনি গিয়ে বলেন, রাতে বই পড়ার লাইট কিনবেন? সেটা আদৌ কোন কার্যকর ফল নিয়ে আসবে? তথ্য উপাত্তের মজাই এটা, আপনি জানবেন যে এই শহরে ডায়াবেটিক রোগী কয়জন আর সেই ডায়াবেটিক রোগীদের কাছেই আপনি ডায়াবেটিক বিস্কুটের বিজ্ঞাপন পৌঁছাতে পারবেন।

এমনকি আপনি চাইলে এই ডায়াবেটিক রোগীদের কাছে নিজের পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন স্বরূপ সোশ্যাল মিডিয়া অথবা মোবাইল নাম্বারে মেসেজও করতে পারবেন। অথবা ধরুন যার বই পড়ার অভ্যাস রয়েছে তার কাছে যদি আপনি নতুন কোন আকর্ষণীয় বইয়ের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করেন তাহলে সেই পাঠকের বইটি ক্রয় করার সম্ভাবনা অনেক বেশি থাকে।

How To Analyze Your Market With Facebook Audience Insights

এই কার্যকরী বিজ্ঞাপনের মাধ্যমেই আপনার পণ্য অনেক বেশি বিক্রয় হওয়ার সম্ভাবনা থাকে এবং বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের ক্ষেত্রে আপনার ব্যবহৃত টাকা রিটার্ন (ROI) আসার সম্ভাবনাও একই সাথে অনেক বৃদ্ধি পায়।

কীভাবে এলো এই ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং?

আদতে সবকিছুর আধুনিকায়নের মাধ্যমেই ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এর ধারণা চলে আসে। গুগুল ও ফেসবুকের মত জায়ান্ট কোম্পানিগুলোর ফ্রি সেবা নিচ্ছেন এমন মানুষের সংখ্যা নেহায়েত কম নয়। আর মূলত এই পৃথিবীতে ফ্রি বলতে কিছু নেই—আপনি এই ফ্রি ব্যবহারের বদলে নিজের সব ডেটা তাদের হাতে তুলে দিচ্ছেন। সোশ্যাল মিডিয়াতে আপনি কি ধরণের ছবি লাইক করছেন, কি ধরণের পণ্য বেশি কিনছেন, এমনকি কোন সময়ে আপনি কোন জিনিসটি ক্রয় করছেন তার সবই ডেটা আকারে এই জায়ান্ট কোম্পানিগুলোর কাছে রয়ে যায়।

How To Grow Your Local Business With Facebook

এই জায়ান্ট কোম্পানিগুলোতে যখন কেউ বিজ্ঞাপন প্রদান করতে যায়, তখন সেই বিজ্ঞাপন যাতে অনেক বেশি কার্যকর হয়ে থাকে, সে জন্যই কাস্টোমার রিলেশনশিপ ম্যানেজমেন্ট (CRM) ধরণের সফটওয়্যারের মাধ্যমে নির্ণয় করা হয় যে বিজ্ঞাপনটি কোথায় প্লেস করলে এবং কীভাবে প্লেস করলে সেটা থেকে বেশি বিক্রয় আসার সম্ভাবনা বেশি।

আবার বর্তমানে এই ডেটার উপর ভিত্তি করে ‘Marketo’ এবং ‘Eloqua’ এর মত বড় বড় কোম্পানি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে। যাদের কাজ হল এই সব ডেটা নিয়ে গবেষণা করা এবং এই সব ডেটা’র সর্বচ্চ ব্যবহারের জন্য সেই গবেষণার ভিত্তিতে ডেটা কালেকশনের জন্যও বিভিন্ন সফটওয়্যার, ট্র্যাকার তৈরি করা। 

বর্তমানে আপনি ফেসবুকে অথবা গুগুলে যখন বিজ্ঞাপন দিতে যাবেন, তখন দেখতে পাবেন যে সবকিছুই অটোমেটিক হচ্ছে। এই বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের বিষয়গুলো সম্পূর্ণ অটোমেটিক সফটওয়্যার দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে।

Facebook Ads & Facebook Marketing MASTERY 2020 | Coursenvy ®

ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এবং ক্রিয়েটিভ মাইন্ড

ডেটা অনুযায়ী বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের ব্যবহার শুরু হওয়ার পূর্বে বিজ্ঞাপনগুলো সাধারণত সবার কথা বিবেচনা করেই তৈরি করা হত এবং সব ধরনের মাধ্যমেই প্রচার করা হত। কিন্তু বর্তমানে কি হচ্ছে? একটি উদাহরণ দিলে বিষয়টি ভালো ভাবে বুঝবেন।

মনে করি ঢাকায় বসবাসরত ইউজারদের মধ্যে অনলাইনে যারা খাবার অর্ডার করেন, তাদের দশ ভাগ বিকেলে চিকেন দিয়ে তৈরি খাবার অর্ডার করেন এবং দশ ভাগ বিফ দিয়ে তৈরি খাবার অর্ডার করেন।

এখন যে দশভাগ চিকেন দিয়ে তৈরি খাবার খেতে পছন্দ করেন, তাদেরকে কি বিফ দিয়ে তৈরি খাবারের বিজ্ঞাপন দিয়ে তেমন কোন বিক্রয় হবে? আবার যারা বিফ দিয়ে তৈরি খাবার খেতে পছন্দ করেন তারা কি চিকেন দিয়ে তৈরি খাবারের বিজ্ঞাপনে আকৃষ্ট হবেন?

এখানে মনে রাখতে হবে তারা উভয়েই কিন্তু অনলাইনে অর্ডার করে খাবার খাচ্ছেন! এখন ক্রিয়েটিভ মাইন্ড এর বিচরণ এখানেই—আপনাকে দুটো আলাদা বিজ্ঞাপন তৈরি করতে হবে। প্রথম দশভাগের জন্য বৈকালিক নাস্তা হিসেবে চিকেন দিয়ে তৈরি পণ্যের বিজ্ঞাপন আর দ্বিতীয় দশ ভাগের জন্য বিফ দিয়ে তৈরি পণ্যের বিজ্ঞাপন।

এর পাশাপাশি এই বিজ্ঞাপনগুলো যদি ঠিক বিকেলের আগে যদি প্রদর্শন করা হয় তাহলে অনেক বেশি কার্যকর হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে বৈকি! আবার আপনি যদি ক্রিয়েটিভ ভাবে চিকেন এবং বিফ উভয় দিয়ে তৈরি খাবার একটি বিজ্ঞাপনের মধ্যে নিয়ে আসতে পারেন তাহলে আপনার বিজ্ঞাপন তৈরির খরচ কমাতে পারে। আর ঠিক এখানেই যে যত বেশি ক্রিয়েটিভ ভাবে কাজ করতে পারবে, তার সফলতাও ঠিক ততটা বেশি হবে।

Social Media Marketing – Content Marketing Masterclass 2020

কীভাবে ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এ ডেটা ব্যবহৃত হয়ে থাকে

ধরুন আপনার একটি ব্লগ আছে যেখানে প্রতি মাসে তিন থেকে চার মিলিয়ন ভিজিটর আছে। এখন এই চার মিলিয়ন ভিজিটর যেহেতু আপনার ব্লগে আছে, তাই আপনি চাইলে সেই ভিজিটরদের ডেটা ব্যবহার করে তাদের বিভিন্ন ধরণের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারবেন। কিন্তু কীভাবে এই ডেটাগুলো আপনি ব্যবহার করতে পারবেন? একদম ব্যাসিক কিছু ধারণা দিচ্ছি, তাহলে বুঝতে পারবেন সহজে।

ধরুন আপনি চাচ্ছেন আপনি একটি শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করবেন। কিন্তু সবাইকে গণহারে সেই বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করলে ফল তেমন একটা পাওয়া যাবে না। আবার ইউজাররা তাদের অনাকাঙ্ক্ষিত বিজ্ঞাপন দেখে বিরক্তও হয়ে যেতে পারে। এখন সেই ভিজিটরদের লোকেশন দেখুন, তারা কে কোন ধরণের এলাকায় বসবাস করে।

The Complete Facebook Ads Course – Beginner to Advanced

  • যারা দেখবেন একটু আর্দ্র এলাকায় বসবাস করে, মনে করবেন তাদের শ্যাম্পুর বেশি প্রয়োজন
  • যারা আপনার ব্লগে চুলের যত্ন নিয়ে আর্টিকেল বেশি পরে তাদেরকে আপনি এই শ্যাম্পুর বিজ্ঞাপন দিতে পারেন 

আবার আপনার কাছে নেটফ্লিক্সের মত অন্য কোন কোম্পানির বিজ্ঞাপন আসল, তখন আপনি,

  • শুধুমাত্র তাদেরকেই টার্গেট করুন, যারা ব্লগের মুভি সেকশনে বেশি সময় পার করছে
  • নিত্য নতুন মুভি রিভিউ বা গসিপ নিয়ে অনেক বেশি আগ্রহী তাদের এই বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করলে বেশি কার্যকর হবে

এছাড়া আপনার ওয়েবসাইটে কে কি লিখে সার্চ দিচ্ছে, সেই অনুযায়ী আপনি নিজের ওয়েবসাইটের বিভিন্ন কন্টেন্ট সাজিয়ে তুলতে পারেন, যাতে ভিজিটররা আরো বেশি করে আপনার ওয়েবসাইটের প্রতি আগ্রহী হয়। ঠিক একই ভাবে, যারা আপনার ওয়েবসাইটের টেক ক্যাটাগরিতে বেশি সময় অতিবাহিত করছে, নিত্য নতুন গ্যাজেট অথবা মোবাইলের রিভিউ পড়ছে আগ্রহের সাথে। তাদেরকে আপনি নতুন মোবাইল বা গ্যাজেটের বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারেন।

আদতে এভাবেই ডেটাগুলো ব্যবহার করা হয়ে থাকে। যত বড় কোম্পানি এবং যত বেশি ভিজিটর তাদের এই ডেটা ম্যানেজমেন্ট আরো অনেক বেশি প্রয়োজন হয়। এবং এই ডেটা ব্যবহার করে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন তাদের জন্য আরো অনেক বেশি কার্যকরী ভূমিকা পালন করে। বর্তমানে জায়ান্ট মার্কেটিং কোম্পানি যেমন গুগুল, ফেসবুক সহ অন্যান্য সবাই এই ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এর উপর নির্ভরশীল।

আপনি যদি ইউজার হয়ে থাকেন!

আপনি বর্তমানে যেই ওয়েবসাইটেই যান না কেন, দেখবেন তাদের কুকি এবং প্রাইভেসি পলিসি মেনেই আপনাকে সেই ওয়েবসাইটটি ব্যবহার করতে হচ্ছে। এখন আপনি যদি সেই পলিসি বিস্তারিত পড়ে দেখেন তাহলে বুঝবেন, আপনার প্রাইভেসি বলতে আদতে কোন কিছুই নেই। আপনি কি করছেন, কি খাচ্ছেন কোথায় যাচ্ছেন সবকিছুর ডেটাই গুগুল কিংবা ফেসবুকের কাছে রয়েছে।

আপনি কেমন মানুষ, একজন ভোক্তা হিসেবে আপনি কেমন আচরণ করছেন সেটাও এই সব জায়ান্টদের কাছে সংরক্ষিত হতে থাকে। আর বিভিন্ন ধরণের বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের সময় আপনার এই ব্যক্তিগত তথ্যগুলোকে ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

Fiverr: Freelance on Fiverr & Become a Top Rated Seller

পরিশেষে এটা বলা যায় যে, বর্তমানে ইউজার হিসেবেও ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এর উপর আমাদের নির্ভরশীল হওয়াটাই ভালো। কেননা এর মাধ্যমে আমাদের কাছে অপ্রাসঙ্গিক বিজ্ঞাপনগুলো দেখা লাগছে না বরং আমাদের প্রয়োজনীয় এবং নিজেদের কাছে আকর্ষণীয় এমন বিজ্ঞাপনগুলোই আমরা দেখছি।   

আর বিজ্ঞাপন দাতা হিসেবে ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং থেকেই যেহেতু বেশি লাভবান হচ্ছি তাই ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং এর ভাণ্ডারে জমা পড়ছে আমাদের সকল আকর্ষণ। প্রতিনিয়তই বিভিন্ন গবেষণা চলছে এবং এই ডেতা ড্রিভেন মার্কেটিং দিন দিন আরো অনেক বেশি কার্যকর ভূমিকা রাখছে।

ডেটা ড্রিভেন মার্কেটিং করার জন্য পড়ুন : ফেসবুক পিক্সেল কি এবং কেন

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to Top