গত পর্বে আমরা দেখেছিলাম কীভাবে খুব সহজেই ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়া যায়। এমনকি আপনি যদি এর আগে কখনো ফেসবুকে বিজ্ঞাপন না দিয়েও থাকেন তবুও এই চ্যাপ্টারটি ফলো করলে সেটা আপনার জন্য বেশ সহজ হয়ে যাবে।

এখন আমরা সিরিজের এই পর্বে আলোচনা করব ফেসবুকের বিভিন্ন ধরণের বিজ্ঞাপন অপশন এবং সেগুলোর সঠিক ব্যবহার নিয়ে। ডিজিটাল মার্কেটিং এর এই যুগে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং এর অন্যতম প্লাটফর্ম ফেসবুকে বিজ্ঞাপন বা বুস্ট দেয়ার মাধ্যমে অনেক বেশি কার্যকর ফলাফল নিশ্চিত করা সম্ভব।

আর আপনি যদি ফেসবুক বিজ্ঞাপনের এই ধরণগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নিন আহলে আপনার ব্যবসার প্রসার এবং পণ্য বিক্রির জন্য একটি কার্যকরী মার্কেটিং প্ল্যান তৈরি করতে পারবেন। এইসবগুলো ধরণের বিজ্ঞাপন ব্যবহার করে আপনি বিভিন্ন ভাবে নিজের পন্যগুলো নিয়ে মানুষের কাছে পৌঁছে যেতে পারবেন। এমনকি একজন সফল মার্কেটার হয়ে অনলাইনে আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে আয়ও শুরু করতে পারবেন।

তবে আপনি যদি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করেই তেমন কোন কার্যত ফলাফল না পেয়ে থাকেন, তাহলে জেনে নিন সোশ্যাল মিডিয়ায় মার্কেটিং করেও সফলতা না পাওয়ার কারণ।

আসুন তাহলে দেখে নেই এই ভিন্ন ভিন্ন বিজ্ঞাপনের ধরন এবং সেগুলোর সঠিক ও কার্যকরী ব্যবহার সম্পর্কেঃ

আপনার ওয়েবসাইটে ট্রাফিক বা ভিজিটর বৃদ্ধি করার বিজ্ঞাপন

আপনার যদি যে কোন ধরণের ওয়েবসাইট থাকে এবং আপনি চান নিজের ওয়েবসাইট সম্পর্কে মানুষকে জানাতে। তাহলে ফেসবুক বিজ্ঞাপন হতে পারে আপনার ওয়েবসাইটের ট্রাফিক বৃদ্ধির অন্যতম একটি মাধ্যম। আপনার ওয়েবসাইটে আপনি ফেসবুক থেকে তিন ধরণের বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে ভিটিজর বৃদ্ধি করতে পারেন।

আপনার ওয়েবসাইট লিংকে ক্লিক করার মাধ্যমে

এই ধরণের বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আপনি নিজের ওয়েবসাইটের নির্দিষ্ট একটি লিংক এ ক্লিক করার মাধ্যমে ভিটিজর নিয়ে যেতে পারবেন। এখন আপনার ওয়েবসাইট যদি সত্যই বেশ ভালো হয় এবং ভিজিটরের পছন্দের হয় তাহলে সেই ভিজিটর কিন্তু আপনার ওয়েবসাইটকে মনে রাখবে ও পরবর্তীতে আবারও ভিজিট করবে।

AliExpress.com Product – BELUSHI Top Brand Watch Men Stainless Steel Business Date Clock Waterproof Luminous Watches Mens Luxury Sport Quartz Wrist Watch

ভিডিও বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে

এটা কিছুটা ছবি দিয়ে বিজ্ঞাপনের মতই। যেখানে ছবির সাথে আপনার ওয়েবসাইটের লিংক থাকে এখানে ভিডিওর সাথে আপনার ওয়েবসাইটের লিংক থাকবে। ভিডিও দেখে যদি ভিজিটরের পছন্দ হয় তাহলে আপনার ওয়েবসাইটের লিংক এ ক্লিক করে বিস্তারিত জানতে বা পড়তে ওয়েবসাইটে চলে যাবে। এভাবে ফেসবুক ভিডিও মার্কেটিং অনেক বেশি কার্যকর।

ফ্যান পেজের পোস্ট বুস্টের মাধ্যমে

আপনার ফ্যান পেজের মধ্যে যে নিজের ওয়েবসাইটের একটি লিংক পোস্ট করতে পারেন এবং সেটার উপরে ক্যাপশন হিসেবে অনেক বেশি আকর্ষণীয় কোন কিছু লিখে দিতে পারেন। পরবর্তীতে অন্যান্য পোস্টের মত করেই সেটা বুস্ট করে দিতে পারবেন।আর এই বুস্ট দেয়ার সময় নিজের পছন্দের অডিয়েন্সও আপনি সেট করে দিতে পারবেন।

পন্য বিক্রয় অথবা নিজের দেয়া সার্ভিসের জন্য ক্লায়েন্ট জোগাড় করতে বিজ্ঞাপন

আপনার যদি কোন ইকমার্স ওয়েবসাইট থাকে এবং একই সাথে আপনি বেশ কয়েকটি পণ্যের অফার বিজ্ঞাপন হিসেবে দেখাতে চান, সেজন্যও ফেসবুকে রয়েছে খুব চমৎকার সুবিধা। আপনার ইকমার্স ওয়েবসাইটের জন্য এসইও (SEO) বা সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বেশ জরুরী। আপনি যদি এই সম্পর্কে তেমন কিছু না জেনে থাকেন তাহলে ই-কমার্স ওয়েবসাইটের এসইও চেকলিস্ট দেখে নিতে পারেন।

এছাড়াও ধরেন আপনি যদি একজন ওয়েব ডেভেলপার হিসেবে কাজ করে থাকেন এবং নিজের সার্ভিসের জন্য ক্লায়েন্ট খুঁজে থাকেন, তাহলেও ফেসবুকে বিশেষ ধরণের বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। এই ধরণের বিজ্ঞাপনে ক্লায়েন্ট যদি আপনার বিজ্ঞাপন পছন্দ করে থাকে তাহলে তার ইমেইল সাবমিট করে যাবে এবং পরবর্তীতে আপনি ইমেইল মার্কেটিং এর মাধ্যমে ক্লায়েন্টের কাছে নিজের বিভিন্ন সার্ভিস সম্পর্কে জানাতে পারবেন।

এই ধরণের কয়েকটি বিজ্ঞাপনের নাম হলঃ

মাল্টি প্রোডাক্ট (ক্যারোসেল এড)

এই বিজ্ঞাপনটি ই-কমার্স ওয়েবসাইটের জন্য খুবই কার্যকরী। একই সাথে বেশ কয়েকটি পণ্যের বিভিন্ন ধরণের অফার সম্বলিত পোস্ট তৈরি করে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করলে একটা না একটা পণ্যের প্রতি কাস্টোমারের আগ্রহ প্রকাশ পেতে প্রায়শই দেখা যায়।

ডায়নামিক প্রোডাক্ট এড ( Dynamic Product Ads)

এই ধরণের বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আপনি নিজের বিভিন্ন পণ্যের ক্যাটালগ তৈরি করে সেটা বিজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করতে পারেন। এই ধরণের বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে আপনি যদি ফেসবুক পিক্সেলের সহযোগিতায় বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করেন তাহলে অনেক বেশি কার্যকর হয়ে উঠবে।

ফেসবুক লিড এড (Facebook Lead Ads)

একটু আগেই যেটা বলছিলাম আপনি যদি বিভিন্ন ক্লায়েন্টের অথবা আপনার ভোক্তার ইমেইল কালেক্ট করে রেখে দিতে চান তাহলে এই ধরণের বিজ্ঞাপন আপনার জন্য খুবই কার্যকর হয়ে উঠবে। এই বিজ্ঞাপনের মধ্যে একটি ফর্ম থাকবে, আপনার কাস্টোমার যদি সেই ফর্ম ফিল-আপ করে নেয় তাহলে সেই ইমেইল আপনার বিজ্ঞাপন একাউন্টের মধ্যে সেভ হয়ে থাকবে। আপনি পরবর্তীতে সেই ইমেইলে নিজের পণ্য বা সার্ভিসের ইমেইল মার্কেটিং করতে পারবেন।

ক্যানভাস এড (Canvas Ads)

এই ধরণের বিজ্ঞাপনের মধ্যে আপনার ভোক্তা বা কাস্টোমার আপনার আপলোড করা ছবিগুলো তো বেশ চমৎকার ভাবে দেখতে পারবে এমনকি আপনার আপলোড করা পন্যের ছবিগুলো আরো ভালো করে দেখার জন্য জুম-ইন করে দেখতে পারবে।

কালেকশন বিজ্ঞাপন (Collection Ads)

আপনি এই ধরণের বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে নিজের ওয়েবসাইটে বিক্রয় হওয়া বিভিন্ন পণ্য সম্পর্কে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। এখানে আপনি চাইলে পণ্যের ছবির পাশাপাশি একই সাথে পণ্য সম্পৃক্ত ভিডিও বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন।

আপনার ফ্যান পেজের লাইক এবং এনগেজমেন্ট এর জন্য বিজ্ঞাপন

আপনি যদি নিজের ফ্যান পেজে লাইক এবং পেজের বিভিন্ন পোস্টে কমেন্ট বাড়াতে চান তাহলে এই ধরণের বিজ্ঞাপন আপনার জন্য খুবই কার্যকর হয়ে উঠবে। সাধারণ আমরা অনেকেই চাই যে আমাদের ফ্যান পেজে মিনিমাম কিছু মানুষ লাইক দিয়ে রাখুক এরপর ধীরে ধীরে আমরা সেই পেজে নিজেদের পণ্য বিক্রয় করা শুরু করতে চাই। আসুন দেখে নেই লাইক এবং এনগেজমেন্টের জন্য ফেসবুকে কয় ধরণের বিজ্ঞাপন সুবিধা রয়েছেঃ

পেজ লাইক এড (Page Like Ads)

আপনি যদি নিজের ফ্যান পেজের লাইক সংখ্যা বাড়াতে চান তাহলে এই ধরণের বিজ্ঞাপন আপনার জন্য খুবই কার্যকর হয়ে দাঁড়াবে। এছাড়াও এই বিজ্ঞাপনের মধ্যে আপনি নিজের পেজ সম্পর্কে সংখেপে লিখে দিতে পারবেন এবং একই সাথে একটি আকর্ষণীয় ছবি অথবা ভিডিও যোগ করতে পারবেন।

এই ধরণের বিজ্ঞাপনে সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আপনার ব্যবহার করা ছবি। এই ছবি যত বেশি আকর্ষণীয় হবে আপনার পেজে লাইক সংখ্যাও ঠিক তত বেশি হবে। আপনার বিজ্ঞাপনও তত ভালো পারফর্ম করবে।

পেজ পোস্টে ছবি বুস্ট করতে পারেন (Page Post Photo Ads)

আপনি ফ্যান পেজে নিজের কাস্টোমারদের আকর্ষণ করার জন্য চমৎকার সব ছবি দিয়ে বুস্ট করতে পারেন। এতে করে আপনার পেজে যারা লাইক দিয়েছিল তারা আরো বেশি আপনার সম্পর্কে জানতে পারবে। সঠিক ছবি যদি ব্যবহার করতে পারেন তাহলে দেখতে রাতারাতি আপনার পোস্টে লাইক কমেন্টের রীতিমত বন্যা বয়ে গেছে।

পেজে ভিডিও আপলোড করে সেটা বুস্ট করতে পারেন (Page Post Video Ads)

বর্তমান সময়ে ভিডিওর মাধ্যমে বিভিন্ন বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করার ট্রেন্ড অনেক বেশি দেখা যায়। আর হবেই বা না কেন? আপনার নিজের কথাই চিন্তা করে দেখেন, আপনিও কিন্তু ফেসবুক এবং ইউটিউবে প্রতিনিয়ত অনেক ভিডিও দেখে সময় পার করে থাকেন। একটি আকর্ষণীয় ভিডিও আপনার পেজের প্রোমোশন অনেক বেশি সুন্দর করে তুলতে পারে।

পেজ পোস্টে যে কোন লেখার মাধ্যমে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন (Page Post Text)

আপনার কাছে যদি ভালো কোন লেখক থাকে তাহলে তাকে দিয়ে ভালো কিছু কথা লিখিয়ে নিজের পেজে লিখে সেটা বুস্ট দিতে পারেন। আর আপনি নিজেই যদি কন্টেন্ট লিখতে চান কিন্তু কীভাবে কন্টেন্ট রাইটার হবেন সেটা জানা না থাকেন, তাহলে আমাদের পোস্টটি পড়ে দেখতে পারেন। আশাকরি কন্টেন্ট রাইটিং এবং কন্টেন্ট সম্পৃক্ত অনেক কিছু জানতে পারবেন। মনে রাখবেন চমৎকার কিছু লেখা আপনার পেজের জন্য অনেক বেশি কার্যকর হয়ে উঠতে পারে। এছাড়া ফেসবুক কন্টেন্ট মার্কেটিং স্ট্র্যাটেজি সম্পৃক্ত কিছু টিপস পেতে চাইলে আমাদের আর্টিকেলটি পড়ুন।

মোবাইল অথবা ডেক্সটপ এপস ইন্সটল করার জন্য বিজ্ঞাপন (Mobile and Desktop Apps Install)

এই ধরণের বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আপনি নিজের কোন এপ্স থাকলে সেটা প্রমোট করতে পারেন। আকর্ষণীয় ভাবে যদি আপনি এই ধরণের বিজ্ঞাপন সেট করে নিতে পারেন তাহলে আপনার এপস ইন্সটলও হবে দেখবেন অনেক বেশি। এই ধরণের বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে আপনি যে শুধুমাত্র মোবাইল এপ এর বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন তা নয় বরং ডেক্সটপের বিজ্ঞাপনও দিতে পারবেন।

ফেসবুকের পাশাপাশি ফেসবুকের আরেকটি ওয়েবসাইট ইন্সটাগ্রামেও আপনি নিজের এই এপসগুলো সম্পর্কে একই সাথে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারবেন।

আপনার ফেসবুক ইভেন্ট অথবা স্টোরে ভিজিটর বৃদ্ধি করতে বিজ্ঞাপন (Visitors for Your Store or Event)

আপনি যদি বিশেষ কোন একটি ইভেন্ট তৈরি করেন তাহলে কিন্তু ফেসবুকের মাধ্যমে সেই ইভেন্টের টিকেটও বিক্রয় করতে পারবেন। এছাড়াও আপনার সেই ইভেন্ট সম্পর্কে মানুষকে জানানোর জন্য ফেসবুকে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারেন।

এছাড়াও আপনার যদি ফেসবুক স্টোর থাকে যেখানে আপনি নিজের বিভিন্ন পণ্য বিক্রয় করে থাকেন, তাহলে পুরো স্টোরে ভিজিটর বৃদ্ধি করার জন্যও আপনি এভাবে বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারেন।

মেসেঞ্জার বিজ্ঞাপন (Messenger Ads)

এই বিজ্ঞাপন বিশেষ করে পণ্য বিক্রয় এবং কাস্টোমারের সাথে সরাসরি কথোপকথনের জন্য বিশেষ ভাবে কার্যকরী। এই বিজ্ঞাপনগুলোতে ক্লিক করলে আপনার ভোক্তা সরাসরি আপনার পেজের ইনবক্সে চলে আসবে এবং সেখানে আপনি ভোক্তার সাথে আলাপ করে তার চাহিদা সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

উপরে উল্ল্যেখিত চমৎকার সব বিজ্ঞাপনের ধরনগুলোর মধ্যে আপনি নিজের পছন্দ অনুযায়ী বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করতে পারেন। এগুলো সম্পর্কে ভালো ভাবে জানা থাকলে বিজ্ঞাপনের প্ল্যান করাও অনেক সহজ। যেমন ধরুন আপনি একটি পেজ তৈরি করতে চান যেখান থেকে শাড়ি বিক্রয় করবেন। প্রথমেই আকর্ষণীয় পেজ খোলার কিছু ধাপ সম্পর্কে জেনে পেজ খুলতে পারেন। এরপর শুরুতেই শাড়ি সম্পর্কে আগ্রহী এমন ভোক্তাদের লাইক বাড়াতে পারেন পেজে। পরবর্তীতে বিভিন্ন ভিডিও মার্কেটিং এর মাধ্যমে শাড়ির আকর্ষণীয় সব অফার ভোক্তাদের মধ্যে ছড়িয়ে দিতে পারেন। পরিশেষে ভোক্তারা যাতে শাড়ি সম্পর্কে জানতে সরাসরি আপনার পেজে মেসেজ দেয় সেজন্য মেসেঞ্জার বিজ্ঞাপন দিতে পারেন। সবকিছুর সার্বিক এবং সুন্দর ব্যবহারের ফলে দেখবেন আপনার পেজ অনেক বেশি সুন্দর ও আকর্ষণীয় হয়ে উঠেছে।

আগামী পর্বে আমরা জানব যে কীভাবে একটি বিজ্ঞাপনকে আরো অনেক বেশি আকর্ষণীয় করে তোলা যায় এবং অনেক বেশি কার্যকর ভাবে ফেসবুকে বিজ্ঞাপন দেয়া যায়। এছাড়াও সেই বিজ্ঞাপনগুলোতে আপনি কীভাবে আরো বেশি ক্রিয়েটিভ উপায়ে ভোক্তাদের আকর্ষণ করতে পারেন সে সম্পর্কেও বিস্তারিত জানতে পারবেন।

লেখক পরিচিতিঃ
MD.ARIFUR RAHMAN

Digital Marketing Expert | SEO Expert | Digital Marketing Trainer |
PPC Expert | Social Media Specialist | Consultant । Affiliate Marketer

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to Top