ফ্রিল্যান্সিং প্ল্যাটফর্মে বাংলাদেশ বর্তমানে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে, আর সেই সফলতার ধারাবাহিকতাতেই অনেকের মনে হাজারো প্রশ্নের ভিড় জমছে প্রতিনিয়ত। কীভাবে এই ক্যারিয়ার শুরু করা যায় ?

চাকরির বাজার যেখানে প্রায় সোনার হরিণের মত হয়ে উঠেছে সেখানে আধুনিকতার সাথে তাল মিলিয়ে বিশ্ব বাজারে হয়ে উঠুন একজন ফ্রিল্যান্সার এবং কাজ করুন সম্পূর্ণ নিজের স্বাধীনতায়।  তাহলে আসুন জেনে নেই, ফ্রিল্যান্সিং কি এবং এর আদ্যোপান্ত… 

ফ্রিল্যান্সিং কি ? 

ফ্রিল্যান্সিং হল কোন কোম্পানি অথবা মানুষের সাথে পার্মানেন্ট কাজ না করে নিদিষ্ট কোন বিষয়ের উপর চুক্তিবদ্ধ হয়ে কাজ করা। যেমন ধরুন আমার একটি লগোর প্রয়োজন এবং আপনি ভালো লগো তৈরি করতে পারেন। এখন আপনার সাথে আমার চুক্তি হল এই লগোটি তৈরি করে দেয়ার জন্য আমি আপনাকে পাঁচ হাজার টাকা দিব। এখানে আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার এবং আমি একজন ক্লায়েন্ট। 

AliExpress.com Product – T68 Men Women Smart Watch with Body Temperature Measure Sports Fitness Watch Heart Rate Blood Pressure Oxygen Monitor Smartwatch

আর এই ক্যারিয়ার যে কোন কাজের ক্ষেত্রেই হতে পারে। যে বিষয়ে আপনার দক্ষতা আছে সেই বিষয়ের উপর কারো সাথে কোন কিছু চুক্তিবদ্ধ হয়ে কোন কাজ করলেই আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার। আবার তার মানে এই না যে আপনি একজন ক্লায়েন্টের শুধুমাত্র একটা কাজই করলেন। এই কাজ বেশ দীর্ঘমেয়াদিও হতে পারে। 

300x250 Got an Idea?

ফ্রিল্যান্সিং করে কি অর্থ উপার্জন করা যায়? 

হ্যাঁ। ফ্রিল্যান্সিং কি, করে প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করা যায় আর এই প্রমাণের জন্য আপনাকে অনেক দূরে কোথাও যেতে হবে না বরং বাংলাদেশেই অনেক সফল ফ্রিল্যান্সার রয়েছেন যারা কাজ করে প্রচুর পরিমাণে অর্থ উপার্জন করেছেন।

তবে তার মানে কিন্তু এই না যে আপনি শুরু করলেন আর অর্থ উপার্জন করা শুরু করলেন।  অনেক অর্থ উপার্জন করতে হলে আপনাকে প্রথমেই দক্ষ হতে হবে যে কাজ আপনি করবেন। আর সফলতার মূলমন্ত্র হল অধ্যবসায়।

ফ্রিল্যান্সিং কি তা ব্যাপারে আমরা ইতিমধ্যে ধারণা পেয়েছি এখন আসুন জেনে নেই ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার পর টাকা পাওয়া যাবে কি না আর টাকা যে পাবো এমন নিশ্চয়তা কি ? 

বর্তমান অনলাইনের যুগে ওডেস্ক, ফাইভার, ফ্রিল্যান্সারের মত অনেক ভালো ভালো ওয়েবসাইট আছে যেখানে আপনি নিজের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে বেশ ভালো পরিমাণ অর্থ উপার্জন করে নিতে পারবেন। আর এইসব সাইটে কাজ করলে একটা বিষয়ে নিশ্চিত থাকতে পারবেন,

আর সেটা হল আপনি আপনার প্রাপ্য অর্থ অবশ্যই পেয়ে যাবেন। আপনি কোন ক্লায়েন্টকে কাজ করে দিলে সেটা বিনিময় অর্থ অবশ্যই আপনাকে দেয়া হবে। ওয়েবসাইট কর্তৃপক্ষ এই ব্যাপারে নিশ্চয়তা প্রদান করে এবং বিগত দীর্ঘদিন ধরেই সফল ভাবে তারা মানুষের বিশ্বাসের মর্যাদা রাখতে সক্ষম হয়ে আসছে। 

ক্যারিয়ার হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং কেমন? 

বর্তমান আধুনিক যুগে ক্যারিয়ার হিসেবে অনেকেই এই ক্যারিয়ার বেছে নিচ্ছেন এবং বিপুল সংখ্যক মানুষ এই পেশায় সফলতাও অর্জন করছে। অন্যান্য পেশার মতই আপনি যদি দক্ষ হন এবং বুদ্ধিমান হন তাহলে আপনি সফল হবেনই।

আর তাই সফল ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গড়তে নিজেকে যোগ্য করে গড়ে তুলতে আপনাকে অবশ্যই দক্ষতা অর্জন করতে হবে নির্দিষ্ট কোন বিষয়ের উপর।  

বিশ্বব্যাপী ফ্রিল্যান্সিং (freelancing) করার সবচেয়ে জনপ্রিয় সাইট হচ্ছে আপওয়ার্ক, ফ্রিল্যান্সার, ফাইভার মার্কেটপ্লেস

কীভাবে শুরু করবেন আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার ? 

এই ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ কে পেশা হিসেবে বেছে নিতে হলে আপনাকে বেশ কয়েকটি ধাপ পার করতে হবে। আর সেই ধাপগুলোই আমরা আজ খুব সুন্দর ও সহজ ভাষায় আপনাদের জানাব। যাতে করে এই ধাপগুলো অনুসরণ করে খুব সহজেই আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হয়ে উঠতে পারেন।  

প্রথম ধাপঃ মনস্থির করে নিন 

প্রথমেই ফ্রিল্যান্সিং কি জানতে হবে তারপর আপনাকে মনস্থির করে নিতে হবে যে যত যাই হোক আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হবেনই। মনে রাখতে হবে সফলতা কখনই খুব সহজে এসে ধরা দেয় না আর এর জন্য করতে হয় কঠোর পরিশ্রম। আপনি নিজেকে আগে জিজ্ঞেস করে নিন আপনি কি কঠোর পরিশ্রম করতে প্রস্তুত কি না ? 

দ্বিতীয় ধাপঃ যে বিষয়ে কাজ করতে চান সেটা নির্ধারণ করুন 

ফ্রিল্যান্সিং কি, কিভাবে কাজ করে তা জানতে গিয়ে দেখবেন এই প্ল্যাটফর্মে হাজারো বিষয় নিয়ে হতে পারে, আর তাই প্রথমেই আপনাকে জেনে নিতে হবে যে আপনি কোন বিষয়ে কাজ করতে চান। অথবা আপনি কি আগে থেকেই কোন বিষয়ে দক্ষ হয়ে আছেন কি না যে আপনি এখনই কাজ শুরু করে দিতে পারবেন। 

যেমন ধরুন লগো ডিজাইন, ওয়েবসাইট তৈরি এসবের জন্য অনেক প্রশিক্ষণের প্রয়োজন আছে। কিন্তু এমন কি হতে পারে  না যে আপনি কোন বিষয়ে ইতোমধ্যেই অনেক দক্ষ হয়ে আছেন? যেমন ধরুন, আপনি খুব ভালো ইংরেজি অথবা বাংলা লিখতে পারেন, অনুবাদ করতে পারেন অথবা আপনি খুব চমৎকার ভাবে একদম আমেরিকানদের মতই ইংরেজিতে কথা বলতে পারেন ! 

এমন কোন কিছু যদি আপনার সাথে মিলে যায় তারমানে আপনি যে কোন বিষয়ের উপর খুবই দক্ষ হয়ে আছেন। এখন আপনি চাইলেই একজন অনুবাদক হিসেবে, কন্টেন্ট রাইটার হিসেবে অথবা ভয়েস ওভার আর্টিস্ট হিসেবে কাজ শুরু করে দিতে পারেন। 

তৃতীয় ধাপঃ কোন সাইটে কাজ করবেন ? 

আপওয়ার্ক, ফাইভার , ফাইভার হল সবচাইতে বেশি জনপ্রিয় ওয়েবসাইট। এই সাইটগুলো আপনি নির্দ্বিধায় কাজ শুরু করে দিতে পারেন। আর এইসব সাইটে একাউন্ট কীভাবে খুলতে হয় এবং কীভাবে কাজ খুঁজে পেতে হয় এইসব বিষয়ে বিস্তারিত অনেক টিউটোরিয়াল ভিডিও রয়েছে। 

বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুনঃ 

ফাইভার কি ? ফাইভার মার্কেটপ্লেস কিভাবে কাজ করে ?

চতুর্থ ধাপঃ নিজেকে তৈরি করে নিন

আপনার যদি কোন ধরনের দক্ষতা না থেকে থাকে তাহলে আপনি যে কোন একটি বিষয়ের উপর নিজের দক্ষতা তৈরি করে নিন। বর্তমান সময়ে সবচাইতে জনপ্রিয় দশটি দক্ষতা নিচে দেয়া হল, যেগুলোর উপর আপনি যদি দক্ষতা অর্জন করতে পারেন তাহলে নিঃসন্দেহে আপনি একজন ভালো মানে ফ্রিল্যান্সার হয়ে উঠতে পারবেনঃ 

(১) গ্রাফিক্স ডিজাইন 

(২) ওয়েবসাইট ডিজাইন 

(৩) ওয়েবসাইট ডেভেলপমেন্ট

(৪) অনুবাদ

(৫) কন্টেন্ট লেখা 

 (৬) ডাটা এন্ট্রি 

 (৭) এপ্লিকেশন ডেভেলপমেন্ট 

(৮) ডিজিটাল মার্কেটিং (এসইও, ইমেইল মার্কেটিং, এসইএম ইত্যাদি) 

(৯) এফিলিয়েট মার্কেটিং 

(১০) একাউন্টিং 

ফ্রিল্যান্সিং করে আপনি কত আয় করতে পারবেন ? 

আদতে কত টাকা ইনকাম করা যায় এর কোন নির্দিষ্ট সীমা পরিসীমা নেই বরং বলা যেতে পারে আপনি কোন আয় নাও করতে পারেন আবার হাজার কোটি টাকাও ইনকাম করে ফেলতে পারবেন। পুরো বিষয়টি আপনার দক্ষতার উপরেই নির্ভর করছে। 

তবে একটি সার্ভে থেকে জানা গেছে যে ভারতীয় ফ্রিল্যান্সারদের মধ্যে প্রায় ২২ শতাংশই প্রতি বছরে গড়ে ষাট লক্ষ টাকারও অধিক উপার্জন করে থাকেন। তাই বুঝতেই পারছেন কোন বিষয়ে দক্ষ হয়ে উঠলে মানুষ আপনার কাছে আসবেই আর আপনাকে দিয়ে কাজ করাবেই। 

আর বর্তমানের এই ডিজিটাল যুগে আয় করার সুযোগের কোন অভাব নেই, একটি ভালো কম্পিউটার আর একটি ইন্টারনেটের লাইন থাকলেই আপনি কাজ করে অনেক টাকা উপার্জন করে ফেলতে পারবেন। 

কোর্স করে কি নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর দক্ষতা অর্জন করা সম্ভব ?

এটা আসলে নির্ভর করে আপনি কোথায় কোর্সটি করছেন এবং আপনার প্রশিক্ষক কে? আপনি যদি ভালো জায়গা থেকে কোর্স করেন তাহলে অবশ্যই সেখান থেকে আপনি কিছু একটা শিখে আসতে পারবেন যেটা আপনি নিজের ফ্রিল্যান্সিংয়ের ক্যারিয়ারে কাজে লাগাতে পারবেন। 

আর তাই কোথাও কোর্স করার আগে তাদের সম্পর্কে জেনে নিন বিস্তারিত। এক্ষেত্রে তারা নিজেরা কি বলছে সেতার উপর নির্ভর না করে বরং দেখুন এমন কাউকে খুঁজে পান কি না যারা ইতোমধ্যেই সেখান থেকে কোর্স করে এসেছে।

তাহলেই তার কাছ থেকে জানতে পারবেন সেখানে কোর্স করে আপনার কি আদৌ লাভ হবে কি না। 

বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুনঃ 

ফ্রিতে ৬ মাসে কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স করবেন

বর্তমানে ইউটিউবে অনেকেই ফ্রি কোর্সের ভিডিও আপলোড করে যাচ্ছেন যেগুলো থেকেও আপনি প্রচুর লাভবান হতে পারবেন। এছাড়া ইউডেমি সহ আরো অনেক জনপ্রিয় ওয়েবসাইট আছে যেখানে নির্দিষ্ট বিষয়ের উপর রয়েছে প্রশিক্ষণ ভিডিও।

যে ভিডিওগুলো মনোযোগ দিয়ে দেখলে এবং সেই অনুযায়ী কাজ করলে আপনি খুব দ্রুতই নির্দিষ্ট কোন বিষয়ের উপর বেশ দক্ষ হয়ে উঠতে পারবেন। 

ফ্রিল্যান্সিংয়ের কাজ শিখতে কি কোন যোগ্যতা থাকা লাগবে ? 

এই প্রশ্নটি অনেকেই করে থাকেন, তবে এর উত্তর না এবং হ্যাঁ, দুটোই হয়। অবাক হচ্ছেন ? তাহলে আসুন জেনে নেই এই সম্পর্কেঃ 

যেহেতু ক্লায়েন্ট আপনার কাজ দেখেই আপনার সাথে কোন কাজ করানোর জন্য চুক্তিবদ্ধ হবেন তাই আপনার প্রথাগত কোন ধরনের যোগ্যতা অর্থাৎ পড়ালেখার সার্টিফিকেটের প্রয়োজন পরবে না। 

তবে যেহেতু বেশীরভাগ ক্লায়েন্টই বিদেশী এবং ইংরেজি ভাষাভাষী হয়ে থাকেন। আর তাই আপনাকে ইংরেজি মোটামুটি জানা থাকতে হবে। ইংরেজি জানা থাকলে আপনার বেশ সুবিধা, শুধুমাত্র ক্লায়েন্টের সাথেই যোগাযোগের জন্য নয় বরং বিভিন্ন ইংরেজি টিউটোরিয়াল ভিডিও অথবা ওয়েবসাইটও আপনি খুব সহজেই ফলো করতে পারবেন এবং সেখান থেকে অনেক কিছু শিখতে পারবেন। 

তবে বর্তমান সময়ে আপনি যাই করুন না কেন, ইংরেজি ভাষার মাধ্যমে যদি আপনি কারো সাথে যোগাযোগ করতে পারেন তাহলে সেটা সর্বক্ষেত্রেই আপনার জন্য বেশ উপকারী ভূমিকা পালন করবে এবং নিজেকে স্মার্ট হিসেবে প্রমাণ করতে পারবেন। 

ফ্রিল্যান্সিংয়ের সম্পর্কিত ওয়েবসাইট থেকে কীভাবে টাকা উত্তোলন করা যায় ? 

অনলাইন সাইটগুলো থেকে অতীতে টাকা উত্তোলন করা বেশ কঠিন হলেও বর্তমানে ব্যাংকগুলো বেশ সহযোগী ভূমিকা পালন করছে। যার ফলে বর্তমানে খুব সহজেই অনলাইন সাইটগুলো থেকে অর্থ উত্তোলন করতে পারবেন। 

পেয়োনিয়ারও বেশ জনপ্রিয় একটি মাধ্যম হিসবে কাজ করে থাকে টাকা উত্তোলনের জন্য। অনেকগুলো সাইটই পেমেন্ট দেয়ার জন্য পেয়োনিয়ার গ্রহণ করে আর পেয়োনিয়ার থেকে আপনি সরাসরি আপনার ব্যাংক একাউন্টে ট্রান্সফার করে ফেলতে পারবেন কোন ধরনের ঝামেলা ছাড়াই। 

পরিশেষে একটি কথাই বলব, আর সেটি হল আপনাকে দক্ষ হতে হবে। যে কোন বিষয়ের উপরেই সামান্য জ্ঞান নিয়ে আপনি কখনই একজন ভালো ফ্রিল্যান্সার হয়ে উঠতে পারবেন না। যে বিষয়ের উপর আপনি ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গঠন করতে যাচ্ছেন সেই বিষয়টি সম্পর্কে আপনার পুরোপুরি জ্ঞান থাকতে হবে। আর পুরোপুরি দক্ষ হলে এই অনলাইন প্ল্যাটফর্মগুলোয় ক্যারিয়ারে সফলতা অর্জন করা কেবল মাত্র সময়ের ব্যাপারে। 

আর তাই কোন প্রশিক্ষণ গ্রহণ করার আগে প্রশিক্ষক সম্পর্কে জেনে নেই যে তার মাধ্যমে শিখলে আদৌ আপনার কোন উপকার হবে কি না। তাহলে আর দেরী কেন ? এখনই নির্দিষ্ট একটি বিষয়ের উপর প্রশিক্ষণ গ্রহণ করে, শুরু করে দিন সেই স্বপ্নের “ফ্রিল্যান্সিং” পেশা আর হয়ে উঠুন একজন সফল ফ্রিল্যান্সার।  

লেখক পরিচিতিঃ

Md.Arifur Rahman

Arifur Rahman, Digital Marketing Expert , SEO Expert , Digital Marketing Trainer, PPC Expert ,Social Media Specialist,Consultant, ফ্রিল্যান্সিং

Digital Marketing Expert | SEO Expert | Digital Marketing Trainer |
PPC Expert | Social Media Specialist | Consultant

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

3 thoughts on “ফ্রিল্যান্সিং কি ? কিভাবে শুরু করবো ?

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Back to Top