সফল হতে কেই বা না চায়? আর বিশেষ করে যখন আপনি যখন একজন সফল পিপিসি মার্কেটার হতে পারবেন তখন সেখান থেকে কত বেশি রিটার্ন আসতে পারে সেটা হয়ত আপনার কল্পনারও বাইরে। গুগুলে আপনি নিজের পন্য বিক্রয় করেন অথবা একজন ফ্রিল্যান্সার হয়ে অন্য কারো পন্যের বিজ্ঞাপন দেন, আপনি যদি এই বিজ্ঞাপনের সফলতার মূলমন্ত্র একবার নিজের আয়ত্বে নিয়ে আসতে পারেন তাহলে আপনাকে আর ঠেকায় কে?

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সফফলতা যে ১০টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে ..

আর আজকে আমরা এই আর্টিকেলে ঠিক এই রকম ১০টি বিষয় নিয়ে কথা বলব, যেগুলোর প্রতি আপনি যদি বিশেস ভাবে মনযোগী হয়ে উঠেন তাহলে সফলতা নিশ্চিত! তবে এখানে একটি কথা বল নেয়া ভালো যে পিপিসি বা গুগুলের এই ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে আপনি যত বেশি প্র্যাকটিস করতে পারবেন তত বেশি সফল মার্কেটার হয়ে উঠবেন।

আসুন তাহলে দেখে নেই সেই ১০টি বিষয়গুলো সম্পর্কে, যেগুলো নিজের আয়ত্বে নিয়ে আসতে হবে আপনাকে।

১। ক্লিক

যেহেতু এই বিজ্ঞাপনগুলো মুলত ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপন তাই আপনাকে এই ক্লিক সম্পর্কে ভালো ভাবে আইডিয়া অর্জন করতে হবে। এক্ষেত্রে আপনাকে সবসময় ভোক্তার প্রান্ত থেকে চিন্তা করতে হবে। আপনাকে ভাবতে হবে যে আপনি নিজের যদি ভোক্তা হতেন তাহলে আপনি এখানে ক্লিক করতেন কি না?

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সফফলতা যে ১০টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে

এছাড়া ঠিক কোন বিষয়গুলো আপনাকে ক্লিক করতে আকর্ষণ করে থাকে। আপনি সাধারনত কি দেখলে ক্লিক করেন। এই ধরনের প্রশ্নের উত্তর যদি আপনার জানা থাকে তাহলে অবশ্যই আপনি যখন বিজ্ঞাপন দিবে তখন সেখানে মানুষ অনেক বেশি ক্লিক করবে।

২। ক্লিক থ্রু রেট বা CTR

কতজন মানুষ আপনার বিজ্ঞাপন দেখল এবং তাদের মধ্যে ঠিক কতজন বিজ্ঞাপনে ক্লিক্ল করল, এই রেশিওকেই বলা হয়ে থাকে ক্লিক থ্রু রেট। উদাহরন হিসেবে বলা  যারে যে, ধরুন আপনার বিজ্ঞাপন প্রায় দশ হাজার মানুষ দেখেছে কিন্তু তাদের মধ্যে থেকে মাত্র ১০০ জন সেখানে ক্লিক করেছে। তাহলে বুঝতে হবে আপনার ক্লিক থ্রু রেট অনেক কম।

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সফফলতা যে ১০টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে

আবার যদি এমন দেখা যায় যে দশ হাজার মানুষের মধ্যে প্রায় ৪/৫ হাজার মানুষ আপনার বিজ্ঞাপনে ক্লিক করেছে তাহলে বুঝতে হবে আপনার বিজ্ঞাপন কাজ করছে। আর আপনাকে ভেবে দেখতে হবে ঠিক কি কারনে আপনার বিজ্ঞাপনে মানুষ কম ক্লিক করছে।

বিভিন্ন ধরনের উপায় বের করে আপনি যখন প্র্যাকটিস করতে থাকবেন তখন ধিরে ধিরে নিজের সমস্যগুলো আপনি বুঝতে পারবেন। এবং এমন ভাবে বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন যাতে করে মানুষ আপনার বিজ্ঞাপনে বেশি ক্লিক করে।

৩। কোয়ালিটি স্কোর

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হিসেবে ধরা হয়ে থাকে এই কোয়ালিটি স্কোরকে। আদতে যেহেতু গুগুলের এই বিজ্ঞাপন পুরোটাই অটোমেটিক পদ্ধতিতে চলে, তাই বিজ্ঞাপনে র‍্যাংকিং হিসেব করার জন্য গুগুল প্রত্যেকটি বিজ্ঞাপনকে একটি কোয়ালিটি স্কোর দিয়ে থাকে।

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সফফলতা যে ১০টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে

আদতে কোয়ালিটি স্কোরের সাথে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের একটি মিল রয়েছে, সেটা হল আদতে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন যেমন অনেকগুলো ফ্যাক্টরের উপরে নির্ভর করে ঠিক তেমনই কোয়ালিটি স্কোরও অনেকগুলো বিষয়ের উপর নির্ভর করে।

আপনার কিওয়ার্ডের সাথে বিজ্ঞাপন সামঞ্জস্য কি না, বিজ্ঞাপনটি ইউজার ফ্রেন্ডলি কি না, মানুষ পছন্দ করছে কি না ইত্যাদি অনেকগুলো বিষয় যদি আপনি ভালো ভাবে অপটিমাইজ করতে পারেন তাহলেই আপনি বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে সফলতা পাবেন।

৪। কস্ট পার ক্লিক CPC

প্রত্যেকটি ক্লিকের জন্য আপনার কত খরচ হচ্ছে সেটা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়। সাধারনত আমরা কোন বিজ্ঞাপন দেয়ার জন্য চিন্তা করে থাকি যে আমাদের একটি নির্দিষ্ট বাজেট অনুযায়ী আমরা বিজ্ঞাপন দিব। তবে পিপিসি ক্যাম্পেইনের খরচ অনেক সময় কম বেশি হতে পারে।

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সফফলতা যে ১০টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে

কেননা পিপিসি ক্যাম্পেইনের বিডিং সিস্টেম একটু আলাদা। এই বিডিং এর ক্ষেত্রে আপনি যদি অটো বিড দিয়ে দেন তাহলে এক ধরনের চার্জ কাটতে পারে আবার আপনি যদি ম্যানুয়াল ভাবে বিডিং সেট করে দেন তাহলে আরেক ধরনের চার্জ। আবার দেখা যেতে পারে বিডিং কম হওয়ার কারনে আপনার বিজ্ঞাপনে কোন ক্লিক আসছেও না।

আপনাকে সিপিসি ক্যাম্পেইনের খরচ সম্পর্কে বিস্তারিত ধারনা রাখতে হবে। এবং কিভাবে কম খরচ করার মাধ্যমে আপনি বেশি ক্লিক পেতে পারেন সেটাও আপনাকে বিবেচনায় রাখতে হবে। আমাদের পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের এই সিরিজটি পড়লে আপনি অনেককিছুই বিস্তারিত জানতে পারবেন।

৫। সিপিএ বা কস্ট পার একশন

অনেক সময় আমরা বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকি শুধুমাত্র ক্লিকের জন্য নয় বরং অন্যান্য উদ্যেশ্য নিয়েও বিজ্ঞাপন দিয়ে থাকি। যেমন ধরুন আপনি বিজ্ঞাপন দিলেন ফোন নাম্বার সহ, যাতে করে কাস্টোমাররা আপনাকে সরাসরি কল করে। এখন এখানে যেহেতু ক্লিক নেই তাই এই ধরনের বিজ্ঞাপন হয় কস্ট পার একশন ধরনের। এখানে প্রত্যেকটি একশনের জন্য আপনাকে একটি নির্দিষ্ট পরিমান টাকা খরচ করতে হবে।

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সফফলতা যে ১০টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে

আবার অনেক সময় বিজ্ঞাপন দেয়া হয় কাস্টোমারের ইমেইল নাম্বারের জন্য এই ধরনের ক্ষেত্রেও প্রত্যেকটি একশনের জন্যই সাধারনত গুগুল চার্জ করে থাকে। আর তাই সিপিএ ভিত্তিক বিজ্ঞাপন দেয়ার সময় পুরো বিষয়টি সম্পর্কে আপনাকে অবগত হতে হবে প্রথমেই।

৬। কনভারশন রেট

এটাও বিজনেসের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। আদতে বিজ্ঞাপন দেয়ার মাধ্যমে আমরা কি চাই? আমরা আসলে পন্যের সেল চাই। আর কনভার্শন রেট হল এই পন্য বিক্রয়ের উপরেই বির্ধারন হয়ে থাকে। আপনার কতটা ক্লিক থেকে একটি পন্য বিক্রয় হয়েছে সেই রেশিও হল কনভার্শন রেট।

যেমন ধরুন আপনার দশ হাজার বিজ্ঞাপন ভিউ থেকে ক্লিক এসেছে পাচ হাজার, কিন্তু পন্য বিক্রয় হয়েছে মাত্র দশটি। অপরদিকে যদি দশ হাজার ভিউ থেকে ১ হাজার ক্লিক আসে কিন্তু সেখান থেকে পন্য বিক্রয় হয় ১০০ টি তাহলে আপনার জন্য এই বিজ্ঞাপনেই বেশি লাভ। বেলাশেষে আপনার কয়টি পন্য বিক্রয় হয়েছে আর কত লাভ হয়েছে সেটাই গুরুত্বপূর্ণ বিষয়।

৭। ইমপ্রেশন শেয়ার (CPM)

আপনার বিজ্ঞাপন থেকে কত ইম্প্রেশন আসল এটা যদিও আদতে তেমন কোন গুরুত্বপূর্ণ বিষয় না তবে যখন কোয়ালিটি স্কোর এর হিসেব হয় তখন ইম্প্রেশন এর সংখ্যাও গননা করা হয়ে থাকে। তবে কতজন মানুষ বিজ্ঞাপন দেখার পর সেখানে ক্লিক করল এবং কতজন মানুষ সেই ক্লিক থেকে আপনার পন্য ক্রয় করল এটাই গুরুত্বপূর্ণ।

তবে দেখা যায় যে, আপনার বিজ্ঞাপন যদি আকর্ষণীয় হয়ে থাকে তাহলে এই বিজ্ঞাপন থেকে বেশি ইম্প্রেশন আসতে পারে। আর সেক্ষেত্রে কোয়ালিটি স্কোর নির্ধারণের ক্ষেত্রে এটা একটি ফ্যাক্টর হিসেবে কাজ করে থাকে।

৮। এভারেজ পজিশন

আপনার সাধারণত সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের ক্ষেত্রেও যেমন পজিশন একটি গুরুওপূর্ন বিষয় ঠিক তেমনই আপনার বিজ্ঞাপন যখন গুগুলে দেখানো হয় তখন সেই বিজ্ঞাপনের পজিশনও একটি বিবেচনায় রাখার মত বিষয়। আপনি হয়ত খেয়াল করেছেন যে গুগুলে যখন কোন সার্চ থেকে বিজ্ঞাপন দেখানো হয় তখন শুধুমাত্র একটি বিজ্ঞাপন দেখানো হয় না। সেখানে বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপন একসাথে দেখানো হয়।

পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের সফফলতা যে ১০টি বিষয়ের উপর নির্ভর করে

এই কয়েকটি বিজ্ঞাপনের মধ্যে প্রথম যে বিজ্ঞাপন দেখানো হয় সেটাতেই মানুষের ক্লিক বেশি আসবে এতাই স্বাভাবিক। আপনার যদি কিওয়ার্ড রিসার্চ ভালো হয় এবং পন্যের সাথে রিলেটেড কিওয়ার্ড দিয়ে খুব সুন্দর ভাবে সাজিয়ে গুছিয়ে বিজ্ঞাপন দেয়া হয় তাহলে এই পজিশনের আপনার বিজ্ঞাপনটি প্রথম দিকে অবস্থান করার সম্ভাবনা বেশি।

৯। বাজেট

প্রত্যেকটি বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রেই বাজেট একতি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এমনকি আপনি যখন কোন ব্যবসার প্ল্যান করবেন তখনই সেই বিজনেস প্ল্যানের মধ্যে আপনাকে বাজেট এলোকেট করে রাখতে হবে। তবে এক্ষেত্রে আপনার সবচাইতে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়টি হল আপনাকে অবশ্যই একজন বিশেষজ্ঞের সাথে আলাপ করে নিতে হবে। তা না হলে আপনি কত ইনভেস্ট করবেন আর কত রিটার্ন আশা করবেন সেটা বুঝে নেয়া খুবই কঠিন বিষয়।

কেননা আপনি যদি এই বাজেট এলোকেশন করতে চান তাহলে আপনার অবশ্যই পিপিসি ক্যাম্পেইনের উপর স্পষ্ট দখল থাকতে হবে। আপনি যদি অভিজ্ঞ হয়ে থাকেন তাহলেই আপনি বুঝতে পারবেন একটি বিজিনেস ইনভেস্ট থেকে কত বেশি রিটার্ন আসতে পারে।

১০। লাইফটাইম ভ্যালু

লাইফটাইম ভ্যালু আদতে আপনি যত বেশি বিজ্ঞাপন দিবেন যত বেশি প্র্যাকটিস করবেন তত বেশি বৃদ্ধি পাবে। কেননা দেখা যাবে প্রথম দিকে আপনার বিজ্ঞাপন থেকে খুব একটা রিটার্ন ইনভেস্টমেন্ট আসছে না কিন্তু পরবর্তীতে দেখা যাবে আপনি যত বেশি অভিজ্ঞ হয়ে উঠছেন তখন আপনার রিটার্নও তত বেশি আসতে থাকবে। আর এই লাইফটাইম ভ্যালু সাধারণত রাতারাতি তৈরি হয় না বরং আপনার অভিজ্ঞতাই আপনার লাইফটাইম ভ্যালু বৃদ্ধি করে থাকে।

পরবর্তীতে দুই তিন বছর পর যখন বিজ্ঞাপন নিয়ে আপনার বিস্তৃত আইডিয়া চলে আসবে তখন আপনি নিজে থেকেই সম্পূর্ণ বাজেট এলোকেশন করে ফেলতে পারবেন। প্রথম দিকে যেমন আপনার যে কোন বিজ্ঞাপন দেয়ার আগে অনেক ভেবে চিনতে এরপর বিজ্ঞাপন দিতে হত পরবর্তীতে আপনি খুব সহজেই বাজেট অনুযায়ী বিজ্ঞাপন দিয়ে দিতে পারবেন।

শেষ কথা

এই ১০টি বিষয় আপনার আলাদা ভাবে অতটা গুরুত্বপূর্ণ মনে নাও হতে পারে। তবে সবগুলো বিষয় যখন আপনার একসাথে কাজে লাগাবেন তখন আপনি এর রেজাল্ট দেখে নিজেই অবাক হয়ে যাবেন। আপনি যদি পিপিসি ক্যাম্পেইনে একদম নতুন হয়ে থাকেন তাহলে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। আমাদের পিপিসি ক্যাম্পেইন সম্পৃক্ত একটি সিরিজ রয়েছে। এই আর্টিকেল সিরিজটি পড়লে আপনি পিপিসি ক্যাম্পেইন সম্পর্কে একটি বিস্তারিত ধারনা পেয়ে যাবেন।

এর পাশাপাশি আমাদের ফেসবুক মার্কেটিং নিয়েও চমৎকার একটি আর্টিকেলে সিরিজ রয়েছে এগুলো পড়লে আপনি ফেসবুকের বিজ্ঞাপন নিয়েও যাবতীয় সকল তথ্যাবলি পেয়ে যাবেন। আশাকরি একজন সফল সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটার হতে হলে আপনাকে আর কোন ধরনের পেইড কোর্স করার প্রয়োজন হবে না। এই আর্টিকেল সিরিজের একদম যাবতীয় খুঁটিনাটি সহ সকল বিষয় আপনি জানতে পারবেন।

গুগুল ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপন বা পিপিসি বিজ্ঞাপন সিরিজের বিগত কিছু আর্টিকেলঃ

** গুগুলের পিপিসি ক্যাম্পেইন বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনে কীভাবে এড এক্সটেনশন ব্যবহার করবেন

**  পিপিসি ক্যাম্পেইন বা গুগুলের ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপন কীভাবে আরো আকর্ষণীয় লেখার মাধ্যমে উপস্থাপন করবেন

**   অডিয়েন্স টার্গেটিং (Audience Targeting)—পিপিসি (PPC) বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপন

** পিপিসি বা ক্লিক ভিত্তিক বিজ্ঞাপনের বাজেট নির্ধারন এবং বিডিং (Budget and Bidding on PPC)

** এড গ্রুপ কি এবং কীভাবে এড গ্রুপের মাধ্যমে পিপিসি বিজ্ঞাপনকে আকর্ষণীয় করে তোলা যায়?

**  কিওয়ার্ড কি এবং পিপিসি ক্যাম্পেইনে কীভাবে কিওয়ার্ড কাজ করে?

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to Top