গুগলে বিজ্ঞাপন দেয়ার সময় সবচাইতে বেশি যে সমস্যাটি আমরা দেখে থাকি সেটা হল প্রতিযোগিতা। শুধুমাত্র লং টেইল কিওয়ার্ডের ক্ষেত্রে প্রতিযোগিতা অনেকখানি কম দেখা যায়। অন্যান্য সব ছোট ছোট কিওয়ার্ড অর্থাৎ যেগুলো দিয়ে মানুষ সচরাচর সার্চ দিয়ে থাকে সেগুলোর বিজ্ঞাপন দিতে গেলে তুলনামূলক ভাবে একটু বেশি খরচ হয়ে থাকে।

এদিকে যেহেতু অনেকেই একই ধরনের বিজ্ঞাপন দিচ্ছে, তাই আমরা সবাই চাই যে অন্যদের থেকে আমার নিজের বিজ্ঞাপনটি একটু বেশি আকর্ষণীয় এবং কার্যকরী হোক।

আর বিজ্ঞাপনের মধ্যে একদম গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি শব্দ বোল্ড করে বিজ্ঞাপনের গুরুত্ব এবং আকর্ষণ প্রায় দ্বিগুণ করে ফেলা সম্ভব !

গুগলে বিজ্ঞাপন দেবার সময় অ্যাডের মধ্যে গুরুত্বপূর্ণ কয়েকটি শব্দ বোল্ড করে অ্যাডের আকর্ষণ প্রায় দ্বিগুণ বৃদ্ধি করা সম্ভব

সতর্কতাঃ যেহেতু এই প্রক্রিয়াটি একদমই নতুন তাই এখনো গুগলের অফিশিয়াল ভাবে একে স্বীকৃতি দেয়া হয়নি। সেহেতু এই ধরনের বিজ্ঞাপন ব্যবহার করার সময় আপনাকে অবশ্যই সতর্ক হতে হবে। টেক্সট বোল্ড করার জন্য আপনাকে AdTools.org এ যেতে হবে এবং আপনার টেক্সট্টি সেখানে পেস্ট করতে হবে। তবে মনে রাখবেন, গুগলে বিজ্ঞাপন দেয়ার ক্ষেত্রে এই বোল্ড করা অক্ষরগুলো একাই চারটি ক্যারেকটার সমান জায়গা নিয়ে নেয়।

গুগলে বিজ্ঞাপন টেক্সট বোল্ড করার জন্য  AdTools.org টুলস ব্যবহার করা যেতে পারে

গুগলে বিজ্ঞাপন টেক্সট বোল্ড করে কি লাভ ?

দেখতেই পাচ্ছেন, টেক্সট বোল্ড করা একদমই সহজ একটি কাজ। কিন্তু এই কাজের মাধ্যমে আপনার লাভ কি ? আদৌ কি এর মাধ্যমে কোন ধরনের এডভান্টেজ পাওয়া সম্ভব ?

আদতে এই ধরনের বিজ্ঞাপনে কি লাভ হবে নাকি সেটা জানার জন্য নিজে একটি বিজ্ঞাপন দেয়া প্রয়োজন। আর তাই আমি নিজেই একই ধরনের দুটো বিজ্ঞাপন দিয়েছিলাম। সেই দুটো বিজ্ঞাপনের একটির মধ্যে টেক্সট বোল্ড করা আছে আর অপরটির মধ্যে টেক্সট বোল্ড করা নাই।

AliExpress.com Product – School Boy Girl Watches Electronic Colorful Light Source Sister brother Birthday kids Gift Clock Fashion Children’s Wrist Watch

বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুনঃ 

গুগল এডসেন্স (Google AdSense) যেভাবে শুরু করবেন ?

মজার ব্যাপার হল দুটো বিজ্ঞাপন দেয়ার পর আমি দেখেছি যে বিজ্ঞাপনের মধ্যে টেক্সট বোল্ড করা ছিল সেই বিজ্ঞাপনটি অপর বিজ্ঞাপন থেকে শতকরা ১১.৩% বেশি কার্যকরী হয়েছে। অর্থাৎ সিপিসি একই হলেও, টেক্সট বোল্ড করা বিজ্ঞাপনের কনভার্শন রেট ১১.৩ ভাগ বেশি ছিল।

এভাবে আমি বেশ কয়েকটি বিজ্ঞাপন দেয়ার পর কোন কোন বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে দেখেছি আমার অন্যান্য বিজ্ঞাপন থেকে প্রায় ১৯.৪% বেশি কার্যকরী হচ্ছে সেই বিজ্ঞাপনগুলো।

কেন গুগলে বিজ্ঞাপন এই প্রক্রিয়া বেশি কার্যকরী হয় ?

আদতে এই ধরনের বিজ্ঞাপনের ক্ষেত্রে যেটা আমি দেখেছি সেটা হল এভাবে মানুষকে অনেক বেশি আকর্ষণ করা সম্ভব। যে কোন লেখার মধ্যে বোল্ড করা লেখাটিই আমাদের চোখে সবচাইতে আগে পরে। আর ঠিক এভাবেই গুগলে বিজ্ঞাপন গুলোর মধ্যেই টেক্সট বোল্ড করা বিজ্ঞাপনগুলো সবার আগে চোখে পরবে।

এছাড়া একই সাথে সেই বিজ্ঞাপনগুলোর মধ্যে বিশেষ আকর্ষণীয় শব্দগুলো যখন বোল্ড আকারে দেখা যাবে তখন কাস্টমার মনে করবে, এটাই তো আমি খুঁজছিলাম। এখানে টেক্সট বোল্ড করার মাধ্যমে বিশেষ শব্দাবলীর উপর আলাদা ভাবে গুরুত্ব দেয়া বুঝায়।

ঠিক একই ভাবে সার্চ রেজাল্টের পেজের মধ্যে যখন সার্চ দাতা নিজের সার্চ করা শব্দগুলো অর্থাৎ নিজের ইন্টারেস্টের অংশগুলো বোল্ড আকারে দেখবেন তখন তাকে বিজ্ঞাপনটি আরো বেশি আকর্ষিত করবে।

গুগলে বিজ্ঞাপন গুলোর মধ্যে টেক্সট বোল্ড করা অ্যাড সার্চ কারির সর্বপ্রথম চোখে পরে থাকে

টেক্সট বোল্ড করা বিজ্ঞাপনগুলো কি গুগলের কাছে গুণগত ভাবে বেশি মুল্যায়িত হয় ?

এই বিষয়ে এখনো পুরোপুরি সঠিক তথ্য পাওয়া যায়নি। যেহেতু একটু আগেই বলছিলাম পুরো প্রক্রিয়াটি একদমই নতুন এবং আগে এগুলো ব্যবহৃত হয়নি। এছাড়া গুগুল কি বিজ্ঞাপনের মধ্যে বোল্ড করা টেক্সটগুলো আলাদা ভাবে বুঝতে পারে কি না সেটাও এখনো জানা যায়নি।

বোল্ড টেক্স সম্পর্কে গুগলের আলাদা কিছু সমস্যা দেখা গিয়েছে প্রায় সময়েই। যেমনটা আমরা দেখি গুগল ট্রান্সলেটর ব্যবহার করার সময়। কেননা দেখা যায় যে, গুগল কখনই বোল্ড করা অক্ষরগুলো অনুবাদ করতে পারছে না। অর্থাৎ গুগুল এই ভাষাটি সঠিক ভাবে বুঝতে পারছে না।

তবে গুগুল ট্রান্সলেটর ব্যবহার করে বোল্ড করা অক্ষরগুলোর অনুবাদ করতে বেশ সমস্যার সন্মুখিন হতে হয়

আর ঠিক তাই আমি লক্ষ্য করেছি যে, টেক্সট বোল্ড করা বিজ্ঞাপনগুলোর সিপিসি রেট অর্থাৎ প্রতি ক্লিকের খরচের পরিমাণ প্রাথমিক দিকে একটু বেশি থাকে তবে কিছুদিন এই বিজ্ঞাপনটি চলার পর আবার অন্যান্য বিজ্ঞাপনের মত একই রকম সিপিসি রেটে রূপান্তরিত হয়ে যায় এটি।

তবে ঠিক কতদিন পর বিজ্ঞাপনের খরচ আগের মত স্বাভাবিক হয়ে যাবে, সেটা আদতে নির্ভর করছে আপনি ঠিক কত টাকা খরচ করছেন তার উপর। তবে গুগল এই ধরনের বিজ্ঞাপনকে আলাদা করে দেখুক অথবা এক করে দেখুক, সেটা আপাত দৃষ্টিতে তেমন একটা গুরুত্বপূর্ণ বলে মনে হচ্ছে না। কেননা এই বিজ্ঞাপনগুলোতে ক্লিক অনেক বেশি আসে এবং ফলাফল অর্থাৎ কনভার্শনও বেশি হয়ে থাকে।

পরিশেষে বলা যেতে পারে, টেক্সট বোল্ড করার মাধ্যমে আদতে আপনি কাস্টমার অর্থাৎ সার্চ দাতার সাথে আলাদা রকমের একটি যোগাযোগ স্থাপনক রতে পারছেন।

অনেক বিজ্ঞাপন দাতার কাছেই হয়ত আমার এই বিশেষ প্রক্রিয়াটি আপাতদৃষ্টিতে আকর্ষণীয় মনে নাও হতে পারে। আবার অনেকে ভাবতে পারেন এর ব্যবহারে আলাদা কোন লাভ নেই। তবে আমি ব্যক্তিগত ভাবে এই ধরনের বিজ্ঞাপন অনেক পছন্দ করছি।

বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুনঃ 

পিপিসি কি ? Pay Per Click কিভাবে কাজ করে ?

আর পছন্দ করার কারণ হল, আমি বিজ্ঞাপনগুলোতে আগের থেকে বেশি ক্লিক পাচ্ছি। তবে মনে রাখবেন, গুগলে বিজ্ঞাপনগুলোর মধ্যে প্রতিযোগিতার দিক থেকে টেক্সট বোল্ড করা বিজ্ঞাপনগুলো কিঞ্চিৎ পিছিয়ে থাকবে।কেননা বোল্ড করা অক্ষরগুলো এখনো গুগল আলাদা করেবু ঝতে পারছে না।

তবে আপাত দৃষ্টিতে এই বিজ্ঞাপনগুলো প্রদর্শনের ক্ষেত্রে কিছুটা পিছিয়ে থাকলেও ফলাফলের দিক থেকে আবার বেশ এগিয়ে থাকে।

এছাড়া আরো একটি ব্যাপার মনে রাখবেন, এই বিজ্ঞাপন প্রক্রিয়াটি গুগলের পাশাপাশি ফেসবুক এবং ইন্সটাগ্রামে বিজ্ঞাপন দেয়ার সময় কাজ করলেও যখন আপনি “বিং” এর মধ্যে বিজ্ঞাপন দিতে যাবেন তখন এই প্রক্রিয়া কাজ করবে না। অর্থাৎ বিজ্ঞাপনের মধ্যে আপনার লেখাগুলোর কিছু অংশ আলাদা করে বোল্ড দেখাবে না।

লেখক পরিচিতিঃ

Md.Arifur Rahman

Arifur Rahman, Digital Marketing Expert , SEO Expert , Digital Marketing Trainer, PPC Expert ,Social Media Specialist,Consultant, গুগলে বিজ্ঞাপন

Digital Marketing Expert | SEO Expert | Digital Marketing Trainer |
PPC Expert | Social Media Specialist | Consultant

ভালো লাগলে শেয়ার করুন

1 thought on “গুগলে বিজ্ঞাপন দেয়ার সময় টেক্সট বোল্ড করে কীভাবে বিজ্ঞাপনকে আরো বেশি কার্যকরী করব ?

    Leave a Reply

    Your email address will not be published. Required fields are marked *

    Back to Top